দাম প্রকাশ: সিনোফার্মের টিকা পাওয়া নিয়ে সংশয়

অনলাইন ডেস্ক, আউটলুকবাংলা ডটকম

চীনের সিনোফার্মের টিকা পাওয়া নিয়ে নতুন করে সংশয় দেখা দিয়েছে। চুক্তির আগেই দাম প্রকাশ করায় এমন অবস্থা তৈরি হয়েছে। এক সপ্তাহের মধ্যে চীনের তৈরি টিকার দেড় কোটি ডোজ কেনার কথা ছিল বাংলাদেশের। সে লক্ষে চুক্তির বিষয়টিও অনেকটা চূড়ান্ত হয়ে যায়।

অবশ্য চীন বাংলাদেশের কাছ থেকে টিকার চাহিদাপত্র পাওয়ার পর বাণিজ্যিক স্বার্থে টিকার দাম প্রকাশ যেন কোনোভাবেই না করা হয় সে বিষয়টি বলে দেয়।

সংবাদমাধ্যম ভয়েস অফ আমেরিকার এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের একজন কর্মকর্তা গণমাধ্যমে সিনোফার্মের টিকা প্রতি ডোজ ১০ ডলার করে কেনা হচ্ছে বলে জানান। এর পরই আপত্তি তোলে চীন।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশের সঙ্গে সুসম্পর্ক থাকায় কম দামে চীন টিকা দিতে চায়। কিন্তু দাম প্রকাশের পর আপত্তি তোলে শ্রীলঙ্কা। তারা চীনের কাছে জানতে চায়, বাংলাদেশকে ১০ ডলারে দেয়া হলেও তাদের কাছে কেন ১৫ ডলার করা চাওয়া হচ্ছে।

এরপরই চীন বাংলাদেশকে চিঠি দিয়ে কূটনৈতিকভাবে জানতে চায়, কেন দাম প্রকাশ করা হলো?

চিঠিতে চীন বলেছে, তাদের আশঙ্কা সত্যি হয়েছে। অনেক দেশ তাদের কাছে বিষয়টিতে আপত্তি জানিয়েছে। বিষয়টি নিয়ে তৈরি হওয়া পরিস্থিতি সামাল দিতে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে কূটনৈতিকভাবে সমাধানের চেষ্টা চলছে।

গত ২৭ মে সিনোফার্মের টিকা কিনতে মন্ত্রিসভার কমিটি সম্মতি দেয়। এরপর মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব শাহিদা আখতার সংবাদ ব্রিফিং করে টিকা কেনার বিষয়ে বিস্তারিত বলেন। সেখানেই তিনি টিকার দাম জানান।

কেন তিনি গোপনীয়তা ভঙ্গ করে টিকার দাম প্রকাশ করেন সে বিষয়ে শাহিদা আখতারের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু হয়, দায়িত্ব থেকেও তাকে সরিয়ে বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা করা হয়।

অবশ্য এই ঘটনার পর চীন জানিয়েছে, টিকা এখন নিতে হলে ১৫ ডলারেই কিনতে হবে তাদের কাছ থেকে। বাংলাদেশ ফেব্রুয়ারিতে টিকাদান কর্মসূচি শুরু করে অক্সফোর্ড অ্যাস্ট্রেজেনেকার ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউটে তৈরি কোভিশিল্ড টিকা দিয়ে।

সিরামের সঙ্গে সরকার তিন কোটি ৪০ লাখ টিকা কেনার চুক্তি করে। প্রতি মাসে ৫০ লাখ করে টিকা দেয়ার কথা বলা হয় চুক্তিতে। কিন্তু সিরাম বাংলাদেশকে মাত্র ৭০ লাখ টিকা দেয়।

এর বাইরে ভারত সরকারের পক্ষ থেকে উপহার হিসেবে বাংলাদেশকে দেয়া হয় ৩৩ লাখ টিকা। বাকি টিকা পাওয়া নিয়ে সংশয় আছে বাংলাদেশের।

এমন বাস্তবতায় দ্বিতীয় ডোজ দেয়া সম্ভব হচ্ছে না অনেককে। টিকার এ ঘাটতি মেটাতে চীন, রাশিয়ার টিকা কিনছে বাংলাদেশ। পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্রের কাছে ২ কোটি ডোজ টিকা চাওয়া হয়েছে।

১২ মে চীন সরকার বাংলাদেশকে উপহার হিসেবে ৫ লাখ ডোজ টিকা পাঠায়।

আরো