দীর্ঘ সময় মোটরসাইকেল ফেলে রাখতে হলে কি করবেন?

স্টাফ রিপোর্টার, আউটলুকবাংলা ডট কম

আমাদের সকলেরই জানা, প্রতিটি মেশিনের নিজস্ব মেয়াদ রয়েছে এবং এটিও বলা হয় যে এগুলো ব্যবহার না করলে তারা আগেই ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে যায়। আমাদের সকলের পচ্ছন্দের মোটরসাইকেলটিও সেই লাইনআপে রয়েছে এবং সে কারণেই এর যথাযথ যত্ন এবং ব্যবহার প্রয়োজন। কখনও কখনও বিভিন্ন পরিস্থিতিতে আমরা আমাদের প্রিয় বাহনটিকে ব্যবহার করতে পারি না। যার ফলে, আমাদের মোটরসাইকেলটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে যায় এবং আমাদের প্রত্যাশিত পারফরম্যান্স দিতে পারে না। আমরা এই সমস্যাটি কাটিয়ে উঠতে কী করতে পারি?

যেমনটি আমরা সবাই জানি মাঝে মাঝেই আমাদের দেশ ও বিশ্ব বিভিন্ন বিপর্যয়ের মুখোমুখি হয় এবং আমরাও প্রয়োজনের তাগিদে এবং টিকে থাকার লড়াইয়ে চলতে থাকে, যার ফলে মোটরসাইকেল বা বাইক বা অন্যান্য যানবহন ব্যাবহার থেকে বিরত থাকি। ঠিক এমনই একটি সময় চলছে আমাদের সামনে। এখন প্রশ্ন হল কিভাবে আমারা আমাদের বাইকটি সংরক্ষণ করতে সক্ষম হব? স্বার্বিক বিবেচনায় আপনার পচ্ছন্দের বাইকটি সংরক্ষণের জন্য কয়েকটি টিপস বা গাইডলাইন প্রস্তুত করেছি, যা দীর্ঘ সময় ব্যবহার না করলে আপনার বাইকটিকে কিছুটা হলেও সংরক্ষণ করবে বলে আসা করা যায়। চলুন দখে আসি।

বাইক সংরক্ষণের জন্য করণীয়:

প্রথমত আপনার বাইকটি একটি নিরাপদ স্থানে রয়েছে কিনা তা নিশ্চিত করতে হবে। আমাদের সকলের একটি নির্দিষ্ট জায়গা রয়েছে যেখানে আমরা আমাদের বাইকটি নিয়মিত রাখি, তবে সময়টা যখন দীর্ঘ সময় তখন অবশ্যই আমাদের বাইকের অবস্থানটি নিরাপদ আছে কিনা তা নিশ্চিত করা উচিত এবং সেই সাথে স্থানটিরতাপমাত্রা যেন খুব বেশি গরম বা ঠান্ডা না থাকে তা খেয়াল রাখতে হবে।

বাইক চুরি থেকে বাচিয়ে রাখতে ভাল মানের তালা বা লক ব্যবহার করতে হবে। কখনও কখনও, আপনি যেখানে বাইকটি সংরক্ষণ করছেন সেই জায়গাটি আনলক করা সম্ভব হতে পারে এবং আপনার সবচেয়ে মূল্যবান জিনিসটি চুরি যাওয়ার একটি বড় সম্ভাবনা থাকে, তাই এবারে সচেতন থাকুন।

বাইকের সৌন্দর্য ধরে রাখতে বাইকটি সঠিকভাবে কভার-আপ বা ঢেকে রাখতে হবে। আপনার বাইকটিকে ধূলাবালি এবং অন্য বায়ু দূষণকারী পদার্থের হাত থেকে রক্ষা করতে বাইকটি ঢেকে রাখা সত্যিই খুব গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এটি বাইকের রঙ এবং সাইন ধরে রাখতে সাহায্য করে। আপনি যদি নিজের বাইকের কভারটি ব্যবহার করতে পারেন তবে খুবই ভালো, তবে যদি এটি সম্ভব না হয় তবে একটি বড় কাপড় দিয়ে পুরো বাইকটি ভালোভাবে ঢেকে রাখুন।

খেয়াল রাখবেন যখনই সময় সুযোগ পাবেন তখনই আপনার বাইকটি ধুয়ে ফেলার চেষ্টা করুন এবং ভালোভাবে ক্লিন করুন। অনেক সময় জরুরি অবস্থার ক্ষেত্রে বা এই জাতীয় সমস্যাগুলির ক্ষেত্রে তা চাইলেও সম্ভব হয় না, তাই সমস্ত প্রয়োজনীয় জিনিস প্রস্তুত করে রাখুন যাতেনিজে নিজেই আপনার পচ্ছন্দের জিনিসটির যত্ন নিতে পারেন।

টেকনিক্যাল যে বিষয়গুলো খেয়াল রাখতে হবে:

আপনি যদি নিজের বাইকটি দীর্ঘ সময়ের জন্য ব্যাবহার না করেন এবং কোন গ্যারেজের ভিতরে ফেলে রাখেন তাহলে বাইকের ফুয়েল বের করে রাখা জরুরি। যেমন; বাইকের তেল এবং ইঞ্জিন তেল বের করে রাখা এবং পরিবর্তনের চেষ্টা করুন। আপনাকে ফুয়েল ট্যাঙ্কারটি আবার ভরে রাখতে হবে না তার কারণ বাতাসের সঙ্গস্পর্শে এসে তা ট্যাঙ্কারে গ্যাস তৈরি করবে। তবে ইঞ্জিন ওয়েল পরিবর্তন করতে হবে এবং আপনার আবহাওয়া এবং ইউজার মেনুয়্যাল অনুসারে নতুন ইঞ্জিন ওয়েল দিয়ে রাখতে হবে, যাতে করে পরবর্তী ব্যবহারের সময় ইঞ্জিন পারফর্মেন্স ভালো থাকে।

বাইকের ব্যাটারি লাইনটিও খুলে রাখা প্রয়োজন, তার কারণ যে বাইকগুলির কিক স্টার্টিং অপশন নেই সেগুলো স্টার্ট করতে চার্জযুক্ত ব্যাটারি লাগে। আপনি যখনই দীর্ঘ সময় ধরে নিজের বাইকটি ফেলে রাখবেন তখন বাইকের ব্যাটারির ক্ষতি হয় এবং আপনাকে পরবর্তীতে অসুবিধায় পড়তে হবে।

আপনার বাইকের কেবল এবং নাট-বোল্টগুলির জয়েন্টগুলোতে ভালোভাবে গ্রিস বা ওই ধরনের লুব্রিকেন্ট দিয়ে মুছে রাখতে হবে। এটি করার ফলে আপনার বাইকটি ইঁদুর এবং পোকামাকড়ের মতো বিভিন্ন ছোট প্রাণী থেকে সুরক্ষিত থাকবে এবং আপনি আবার যখন ব্যবহার শুরু করবেন তখন এই তার বা জয়েন্টগুলো ব্যবহারের জন্য প্রস্তুত থাকবে, না হলে কেবলগুলো ছিড়ে যাওয়া বা ফেটে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। আর যাই হোক, অনেকদিন পর বাইক চালানোর সময় আপনাকে বিরক্তিকর শব্দ শুনতে হবে না, যা বিভিন্ন তার বা জয়েন্টগুলো থেকে হয়ে থাকে।

নিরাপদে থাকুন, নিরাপদে চলুন এবং আপনার মোটরসাইকেলের সেইফটি বজায় রাখুন।

আরো