দীর্ঘায়ু হতে চাইলে যেসব নিয়ম মানবেন

পৃথিবীতে সুস্থ-সবলভাবে বেশি দিন বেঁচে থাকতে সবাই চায়। মানুষের গড় আয়ু প্রায় ৭০ বছর। নিয়ম মেনে চললে ৮০-৯০ বা ১০০ বছরের কাছাকাছি বাঁচা সম্ভব। মানুষের স্বাভাবিক আয়ু ১৫০ বছর হওয়া উচিত বলে বিজ্ঞানীরা মনে করেন এবং নিয়মিত ব্যায়ামে বার্ধক্য-প্রক্রিয়ার গতি কমানো যায়। সুস্থ জীবনযাপন বিশেষ করে স্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস, দৈনিক শারীরিক ব্যায়াম ও মনোচাপ থেকে মুক্তিতে আয়ু বাড়ে।

চিকিৎসাবিজ্ঞানের মতে, রোজকার জীবনযাত্রার সমস্যা, খাদ্যাভ্যাস দ্রুত আমাদের বুড়িয়ে দিচ্ছে। এরফলে নানা ধরনের রোগ তো হচ্ছেই পাশাপাশি দেখা দিচ্ছে ত্বকের সমস্যা।

বিশেষজ্ঞরা বলেন, আমাদের চারপাশের পৃথিবী অনেকটাই বদলে গিয়েছে। এখন আমরা দ্রুত জীবন কাটাচ্ছি। সারাক্ষণ আমরা ব্যস্ত। সকাল থেকে শুরু হচ্ছে ব্যস্ততা। সারাদিন পেরিয়ে যখন ঘুমাতে যাচ্ছি, তখনও পাচ্ছে না ঘুম। এরপর আবার রয়েছে খারাপ খাদ্যাভ্যাস।

আমাদের বয়স দ্রুত বেড়ে যাচ্ছে। ত্বকে দেখা দিচ্ছে বলিরেখা! তাই সাবধান হওয়া ছাড়া উপায় নেই। তবে এই উপায়গুলি একবার মেনে চলুন। বয়স থাকবে আপনার হাতের মুঠোয়।

পানি পান করুন

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, শরীরে পানির ঘাটতি হলে দ্রুত দেখা দিতে পারে সমস্যা। সেক্ষেত্রে আপনার উচিত পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পান করা। এই শীতেও কিন্তু আপনাকে পানি পান করে যেতে হবে। মোটামুটি ২ লিটার পানি পান করতেই হবে।

শরীরচর্চা

শরীরকে সুস্থ রাখার কাজে শরীরচর্চা থেকে ভালো কোনও পথ নেই। তাই আলস্য ত্যাগ করুন। শরীরচর্চা আপনার শরীরকে এনে দিতে পারে যৌবনের ক্ষমতা। এছাড়া বয়স ধরে রাখতেও শরীরচর্চার কোনও জুরি নেই। তাই দিনে অন্ততপক্ষে ৩০ মিনিট শরীরচর্চা হল মাস্ট। এক্ষেত্রে কোন ধরনের শরীরচর্চা করবেন, তা ঠিক করবেন একজন বিশেষজ্ঞ। নিজেরে থেকে করতে চাইলে দৌড়াতে পারেন, হাঁটতে পারেন।

ঘুম

ঘুম শরীরের পক্ষে খুবই জরুরি। শরীরের সমস্ত গঠনক্রিয়া ঘুমের মধ্যে হয়। এই সময় শরীর নিজেকে সারিয়ে নেয়। দিনে ৭ থেকে ৮ ঘণ্টা ঘুম দরকার। ঘুমের জন্য একটা নিরিবিলি ঘর বাছুন। দেখবেন, যাতে কোনও শব্দ যেন প্রবেশ না করে। এক্ষেত্রে ঘুমাতে যাওয়ার ১ ঘণ্টা আগে থেকেই সব ইলেকট্রনিক গ্যাজেটস দূরে সরিয়ে রাখুন।

দুশ্চিন্তা দূর করুন

দুশ্চিন্তা দূর করতেই হবে। কারণ এই দুশ্চিন্তা ডেকে আনতে পারে নানা ধরনের সমস্যা। বিশেষত, আপনাকে বুড়িয়ে দিতে পারে এই দুশ্চিন্তা। সেক্ষেত্রে প্রথমেই আপনি দুশ্চিন্তা দূর করায় জোর দিন। দুশ্চিন্তা দূর করতে চাইলে আপনাকে অবশ্যই প্রাণায়াম বা মাইন্ডফুলনেস করতে হবে।

ভালো খাবার খান

খাবারের মাধ্যমে আমরা শক্তি সঞ্চয় করি। সেই শক্তি আমাদের বেঁচে থাকতে সাহায্য করে ও আমাদের সুস্থ রাখে। তবে বর্তমান সময়ের বেশকিছু খাবারদাবার আমাদের সমস্যার দিকে ঠেলে দিতে পারে। সেক্ষেত্রে খাবারের দিকে হতে হবে সচেতন। খান মরশুমি ফল, শাক, সবজি। এই ধরনের খাবার আপনাকে সুস্থ রাখতে পারে। এছাড়া পাতে থাকুক মাছ, ডিম, মাংসের মতো প্রোটিন। বেশি তেল, ঝাল, মশলা খাবেন না। এড়িয়ে চলুন বাইরের খাবার।

প্রকৃতির সংস্পর্শে যান

মনের চাপ কমাতে কিছুটা সময় প্রকৃতির সান্নিধ্যে কাটান। এতে রক্তচাপ কমবে ও মন ভালো হবে। বেশ কিছু গবেষণায় দেখা গেছে, প্রকৃতির মধ্যে কিছুক্ষণ হেঁটে বেড়ালে মানসিক অবস্থার উন্নতি হয়। বিষণ্নতা দূর করতে, সিজোফ্রেনিয়ার মতো সমস্যা দূর করতেও প্রকৃতির সান্নিধ্য কাজে লাগবে।