দেশের সবচেয়ে বড় গ্রিন সুকুক বন্ডের লেনদেন উদ্বোধন বৃহস্পতিবার

লেনদেনে শুরুর অপেক্ষায় দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় গ্রিন সুকুক বন্ড। তিন হাজার কোটি টাকার এই সুকুক লেনদেন শুরু হবে বৃহস্পতিবার (১৩ জানুয়ারি)।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ-ডিএসই সেদিন এক অনুষ্ঠানেরও আয়োজন করবে। সেখানে প্রধান অতিথি থাকবেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা ও বেক্সিমকো গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান সালমান ফজলুর রহমান।

বিশেষ অতিথি থাকবেন পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াত উল ইসলাম।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) চেয়ারম্যান ইউনুসুর রহমান।

ডিএসইর নিকুঞ্জে মাল্টি পারপাস হলে উদ্বোধন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে বলে ডিএসই নিশ্চিত করেছে।

গত ২২ ডিসেম্বর সুকুকের জন্য ৩ হাজার কোটি টাকার সংগ্রহ শেষ করেছে এর উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান বেক্সিমকো লিমিটেড। সেদিন ডিএসই ওয়েবসাইটে জানানো হয়, সুকুক বন্ডের মাধ্যমে বেক্সিমকো লিমিটেডের যে ৩ হাজার কোটি টাকা উত্তোলনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল, সেটি গত ২১ ডিসেম্বর অর্জিত হয়েছে।

সুদবিহীন সুকুক বন্ড ছেড়ে ৩ হাজার কোটি টাকার বেশির ভাগ অংশই দুটি সৌরচালিত বিদ্যুৎকেন্দ্রে বিনিয়োগ করবেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি খাতবিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমানের পারিবারিক প্রতিষ্ঠান বেক্সিমকো লিমিটেড।

গত বছরের ১৬ আগস্ট সুকুকের আবেদন গ্রহণ শুরু হয়। ৩ হাজার কোটি টাকার মধ্যে বিদ্যমান শেয়ারধারীদের কাছ থেকে ৭৫০ কোটি টাকা তোলার পরিকল্পনা জানিয়ে আইপিও আবেদন চাওয়া হয়। আবেদনের মেয়াদ ২৩ আগস্ট শেষ হলে দেখা যায় মাত্র ৫৫ কোটি ৬১ লাখ ৫৫ হাজার টাকার জন্য আবেদন জমা পড়ে।

এরপর ২০২১ সালের ৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আবেদনের সময় বাড়ানো হয়। এই সময়ে কেবল একজন নতুন করে আবেদন করেছিলেন। এ অবস্থায় তৃতীয় দফায় ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাড়ানো হয় মেয়াদ। সে সময় বিএসইসি বলেছিল, এই সময়ের মধ্যে সুকুকে আইপিও কোটা পূরণ না হলে তা বাতিল হবে।

এ অবস্থায় একই বছরের ২১ ডিসেম্বর সুকুকের লক্ষ্যমাত্রার টাকা উত্তোলন শেষ করে বেক্সিমকো লিমিটেড।

৩ হাজার কোটি টাকার মধ্যে ২৬টি প্রতিষ্ঠান দিয়েছে ২ হাজার ১০৩ কোটি টাকা। বাকি টাকার মধ্যে ২ কোটি টাকা পাওয়া গেছে বর্তমান শেয়ারধারীদের কাছ থেকে। ১৩৫ কোটি টাকা সংগ্রহ হয়েছে আন্ডাররাইটার, ৪২৩ কোটি টাকা এসেছে পাবলিক সাবক্রিপশন থেকে এবং ৩৩৬ কোটি ৯২ লাখ টাকা পাওয়া গেছে বিভিন্ন করপোরেট প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে।

গত বছরের ২৩ জুন নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি বেক্সিমকো লিমিটেডকে সুকুকের বিপরীতে ৩ হাজার কোটি টাকা উত্তোলনের অনুমোদন প্রদান করে।

সুকুক বন্ডে কোনো সুদ নেই। এটি ট্রাস্টির মাধ্যমে পরিচালিত হয়। এই বন্ডের মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহ করে মূলত বড় বড় প্রকল্পে বিনিয়োগ করা হয়।

এসব প্রকল্পের মালিকানার অংশীদার হন সুকুক বন্ডের বিনিয়োগকারীরা, অন্য বন্ডে এই সুযোগ নেই। সুকুক বন্ডের বিনিয়োগ ব্যর্থ হলে ওই প্রকল্পের সম্পদ বিক্রি করে বিনিয়োগকারীদের অর্থ ফেরত দেয়ার সুযোগ আছে।

গত বছরের ডিসেম্বরে সুকুক বন্ড ছেড়ে ৪ হাজার কোটি টাকার বিনিয়োগ তোলে সরকার। এ অর্থ দেশজুড়ে বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের লক্ষ্যে গণস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের পরিচালনায় ব্যয় করা হবে।

বিনিয়োগকারীরা কী পাবেন

সুকুক বন্ডের বিনিয়োগকারীরা চাইলে তাদের ইউনিটগুলো বেক্সিমকো লিমিটেডের শেয়ারে রূপান্তর করে নিতে পারবেন। প্রতি বছর সর্বোচ্চ ২০ শতাংশ হারে এটি করা যাবে। এ জন্য নির্ধারিত রেকর্ড ডেটের আগের ২০ দিনে বেক্সিমকো লিমিটেডের শেয়ারের দামের যে ভারিত গড় হবে, তার ২৫ শতাংশ কমে এ শেয়ার পাবেন সুকুকধারীরা।

অর্থাৎ উল্লিখিত সময়ে বেক্সিমকোর শেয়ারের গড় দাম ১০০ টাকা হলে রূপান্তর মূল্য হবে ৭৫ টাকা। তার মানে ১ হাজার টাকার সুকুক বন্ডের বিপরীতে মিলবে ১৩ দশমিক ৩৩টি শেয়ার। কেউ প্রথম বছর রূপান্তর না করলেও পরবর্তী বছরে এ সুযোগ নিতে পারবে। কেউ একেবারেই রূপান্তর না করলে, মেয়াদ শেষে নিয়ামানুযায়ী বিনিয়োগকৃত টাকা ফেরত পাবেন।

মুনাফা কেমন হবে

বেক্সিমকোর প্রাক্কলন বলছে, সুকুক বন্ডটির ভিত্তি মুনাফা হবে কমপক্ষে ৯ শতাংশ। এর বাইরে সুকুকটি অংশগ্রহণমূলক হওয়ায় বেক্সিমকো লিমিটেডের ঘোষিত লভ্যাংশের সঙ্গে সুকুকের মুনাফার যে ফারাক থাকবে, তার ১০ শতাংশ অতিরিক্ত মুনাফা হিসেবে যুক্ত হবে। বেক্সিমকো লিমিটেড ২০ শতাংশ লভ্যাংশ ঘোষণা করলে সুকুকের নিশ্চিত মুনাফার সঙ্গে ফারাক হয় ১১ শতাংশ। এর ১০ শতাংশ হলো ১ দশমিক ১০ শতাংশ। তার মানে সুকুকধারীরা পাবেন ১০ দশমিক‌ ১ শতাংশ মুনাফা।

একই পদ্ধতিতে দ্বিতীয় বছরে ১০ দশমিক ৬০ এবং তৃতীয় বছরে ১১ দশমিক ১০ শতাংশ মুনাফা প্রাক্কলন করা হয়েছে। এ সময়ের মধ্যে সুকুকের যেই অংশ বেক্সিমকো লিমিটেডের শেয়ারে রূপান্তরিত হবে, সেটুকুর ক্যাপিটাল গেইন যোগ করলে মুনাফার হার আরও বাড়বে।

কোম্পানির কর্তাব্যক্তিরা মনে করেন, বাজার মূল্যের চেয়ে ২৫ শতাংশ কমে সুকুকধারীরা শেয়ার পাওয়ায় প্রতি বছর এ ক্ষেত্রে ইল্ড দাঁড়াবে ৬ দশমিক ৬৭ শতাংশের মতো। আর ফেয়ার ভেল্যু গেইন হবে ৪ শতাংশ। সব মিলিয়ে প্রথম বছরেই একজন বিনিয়োগকারী ২০ দশমিক ৭৭ শতাংশের মতো মুনাফা ঘরে তুলতে পারেন। দ্বিতীয় বছর থেকে রূপান্তরিত সাধারণ শেয়ারের লভ্যাংশ যুক্ত হওয়ায় এর পরিমাণ হতে পারে ২৩ দশমিক ৬৭ শতাংশ। তৃতীয় বছরে ২৬ দশমিক ৫৩ শতাংশ।