বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুলের ১২৩তম জন্মবার্ষিকী আজ

আজ ১১ জ্যৈষ্ঠ, ২৫ মে বুধবার। গানের বুলবুল নামে খ্যাত বিদ্রোহী কবি, প্রেমের কবি, সাম্যের কবি, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৩তম জন্মবার্ষিকী। জাতীয় পর্যায়ে কাজী নজরুল ইসলামের জন্মবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে সরকার। সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবার কবির ১২৩তম জন্মবার্ষিকীর প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করেছে— ‘বিদ্রোহীর শতবর্ষ’।

১৯৭২ সালের ২৪ মে কাজী নজরুল ইসলামের জন্মদিনে তাকে ঢাকায় এনে জাতীয় কবির মর্যাদায় ভূষিত করেন স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। কবির ‘চল্ চল্ চল্, ঊর্ধ্ব গগনে বাজে মাদল’কে সামরিক সংগীত হিসেবে নির্বাচিত করে তাকে সম্মানিত করা হয়।

১৯৭৬ সালের ২৯ আগস্ট তৎকালীন পিজি (বর্তমানে বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করেন তিনি। মৃত্যুর পর তার ইচ্ছা অনুযায়ী, কবিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের পাশে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত করা হয়। সেখানেই চিরনিদ্রায় শায়িত আছেন গানের বুলবুল জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম।

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৩তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে বুধবার (১১ জৈষ্ঠ্য, ২৫ মে) সকাল সাড়ে ৬টায় সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ও সচিবের নেতৃত্বে কবি নজরুল ইনস্টিটিউটসহ মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন ঢাকায় অবস্থিত বিভিন্ন দফতর-সংস্থাগুলো কবির সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবে। এ বছর বিদ্রোহী কবির জন্মবার্ষিকীর মূল অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়েছে নজরুল স্মৃতিবিজড়িত কুমিল্লায়। কুমিল্লার বীরচন্দ্র গণপাঠাগার ও নগর মিলনায়তন প্রাঙ্গণে (টাউন হল) বুধবার সকাল ১১টায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকবেন তথ্য সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

উল্লেখ্য, গত ১৮ এপ্রিল অনুষ্ঠিত জাতীয় পর্যায়ে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৩তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদের সভাপতিত্বে বাংলাদেশ শিল্পকলা অ্যাকাডেমির জাতীয় নাট্যশালার সেমিনার হলে জাতীয় কমিটির সভায় এসব কর্মসূচি চূড়ান্ত করা হয়।

গানের বুলবুল নামে খ্যাত জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ডাক নাম ছিল ‘দুখু মিয়া’। তিনি ছিলেন বাংলা কবিতার একমাত্র বিদ্রোহী কবি। অবিভক্ত বাংলার (বর্তমানে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ) বর্ধমান জেলার আসানসোলের জামুরিয়া থানার চুরুলিয়া গ্রামে ১৩০৬ বঙ্গাব্দের ১১ জ্যৈষ্ঠ (১৮৯৯ সালের ২৫ মে) জন্মগ্রহণ করেন তিনি। তার বাবার নাম কাজী ফকির আহমেদ ও মায়ের নাম জাহেদা খাতুন।

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম ছিলেন প্রেম, বিরহ-বেদনা ও সাম্যের কবি। তিনি ছিলেন বাংলা সাহিত্য-সংগীত তথ্য সংস্কৃতির অন্যতম প্রধান পুরুষ। ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের সময় কাজী নজরুল ইসলামের লেখনী ধুমকেতুর মতো আঘাত করে জাগিয়ে তুলেছিল ভারতবাসীকে। বিদ্রোহী কবিতে পরিণত হন তিনি।

‘দুখু মিয়া’ হিসেবেও পরিচিত এই কবি সাম্রাজ্যবাদ, ফ্যাসিবাদ, নিপীড়ন, অনাচার, বৈষম্য, শোষণ ও পরাধীনতার বিরুদ্ধে অগ্নিকণ্ঠে সোচ্চার হয়ে লিখেছেন অসংখ্য গল্প, কবিতা, উপন্যাস ও গান। এছাড়া তিনি ছিলেন চির প্রেমের কবি। প্রেম নিয়েছিলেন এবং দিয়েছিলেন। তিনি বিদ্রোহী কবি হলেও তার প্রেমিক রূপ ছিল প্রবাদপ্রতিম। এ কারণেই অনায়াসে এ কবি বলে গেছেন, ‘আমার আপনার চেয়ে আপন যে জন, খুঁজি তারে আমি আপনায়।’ এছাড়াও একাধারে তিনি কবি, গল্পকার, ঔপন্যাসিক, নাট্যকার, শিশু সাহিত্যিক, অনুবাদক, প্রাবন্ধিক, সম্পাদক, সাংবাদিক, গীতিকার, সুরকার, স্বরলিপিকার, গীতিনাট্যকার, গীতালেখ্য রচয়িতা, চলচ্চিত্র কাহিনিকার, চলচ্চিত্র পরিচালক, সংগীত পরিচালক, গায়ক, বাদক, সঙ্গীতজ্ঞ ও অভিনেতা ছিলেন।

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম লিখে গেছেন ২২টি কাব্যগ্রন্থ, সাড়ে ৩ হাজার মতান্তরে ৭ হাজার গানসংবলিত ১৪টি সংগীত গ্রন্থ, ৩টি কাব্যানুবাদ ও ৩টি উপন্যাস গ্রন্থ, ৩টি নাটক, ৩টি গল্পগ্রন্থ, ৫টি প্রবন্ধ, ২টি কিশোর নাটিকা, ২টি কিশোর কাব্য, ৭টি চলচ্চিত্র কাহিনিসহ অসংখ্য কালজয়ী রচনা।

জানা গেছে, কাজী নজরুল ইসলাম ১৯৪১ সালের শেষ দিকে অসুস্থ হয়ে পড়েন। এক বছরেরও বেশি সময় ধরে চিকিৎসা চলে লুম্বিনী পার্ক ও রাচি মেন্টাল হাসপাতালে। পরে ১৯৫৩ সালে ইংল্যান্ড ও জার্মানিতে পাঠানো হয় তাকে। এই সময়ে একেবারেই বাকশক্তি হারিয়ে ফেলেন তিনি। ফলে ১৯৫৩ থেকে ১৯৭২ সাল পর্যন্ত অসুস্থ অবস্থায় নীরবে-নিভৃতেই কাটে তার জীবন।

১৯৭২ সালের ২৪ মে জন্মদিনে ঢাকায় এনে তাকে জাতীয় কবির মর্যাদায় ভূষিত করেন স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। কবির ‘চল্ চল্ চল্- ঊর্ধ্ব গগনে বাজে মাদল’কে সামরিক সংগীত হিসেবে নির্বাচিত করে সম্মানিতও করেন।

১৯৭৬ সালের ২৯ আগস্ট তৎকালীন পিজি (বর্তমানে বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। মৃত্যুর পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের পাশে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সমাহিত করা হয় কবিকে। সেখানেই চিরনিদ্রায় শায়িত আছেন জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম।

সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ কুমিল্লায় আয়োজিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন। অনুষ্ঠানে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি সিমিন হোসেন (রিমি), কুমিল্লা-৬ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আ. ক. ম. বাহাউদ্দিন বাহার ও কবির নাতনি খিলখিল কাজী উপস্থিত থাকবেন। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখবেন সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব আবুল মনসুর। স্মারক বক্তা হিসেবে উপস্থিত থাকবেন অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক ও নজরুল গবেষক শান্তিরঞ্জন ভৌমিক। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করবেন কুমিল্লার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ শিল্পকলা অ্যাকাডেমির পরিবেশনায় নৃত্যনাট্যসহ ৩০ মিনিটের সাংস্কৃতিক পর্ব থাকবে।

ঢাকাসহ জাতীয় কবির স্মৃতিবিজড়িত ময়মনসিংহের ত্রিশাল, কুমিল্লার দৌলতপুর, মানিকগঞ্জের তেওতা, চুয়াডাঙ্গার কার্পাসডাঙ্গা এবং চট্টগ্রামে সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের পৃষ্ঠপোষকতায় ও স্থানীয় প্রশাসনের ব্যবস্থাপনায় যথাযোগ্য মর্যাদায় কাজী নজরুল ইসলামের ১২৩তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন করা হবে। এ উপলক্ষে নজরুল মেলা, নজরুল বিষয়ক আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করবে স্থানীয় প্রশাসন।

সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, কবি নজরুল ইনস্টিটিউট বাংলা একাডেমির সহযোগিতায় জাতীয় কবির জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণিকা ও পোস্টার মুদ্রণ করবে। জাতীয় পর্যায়ের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান সরাসরি সম্প্রচারসহ অন্যান্য অনুষ্ঠানমালা বাংলাদেশ টেলিভিশন, বাংলাদেশ বেতার, বেসরকারি বেতার ও টেলিভিশন চ্যানেলগুলো ব্যাপকভাবে সম্প্রচার করবে। বিদেশে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসগুলো যথাযথ কর্মসূচি গ্রহণের মাধ্যমে দিবসটি উদযাপন করবে।

জাতীয় কবির ১২৩তম জন্মবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী জাতীয় পর্যায়ের মূল অনুষ্ঠানসহ অন্যান্য অনুষ্ঠানে ব্যাপক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হয়েছে। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স এসব স্থানের অগ্নি নির্বাপণ ব্যবস্থা নিশ্চিত করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। এছাড়া কবির স্মৃতিবিজড়িত সব জেলায় জাতীয় কবির ছবি, কবিতা, পরিচিতি ও চিত্রকর্ম প্রদর্শন এবং বিভিন্ন সড়ক দ্বীপে ব্যানার, ফেস্টুন, পোস্টার ও ডিজিটাল ডিসপ্লে স্থাপন এবং আলোকসজ্জার ব্যবস্থা করা হবে।

কবি নজরুল ইনস্টিটিউটসহ সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন সব দফতর ও সংস্থাগুলো এ উপলক্ষে বিশেষ আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করবে। কবি নজরুল ইনস্টিটিউটের নির্বাহী পরিচালকের তত্ত্বাবধানে ঢাকার রবীন্দ্র সরোবরে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

জাতীয় কবির জন্মবার্ষিকীতে বর্ণাঢ্য আয়োজন

২৫ মে ২০২২, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৩তম জন্মবার্ষিকী। এ উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি।

এদিন সকাল ৬টা ৩০ মিনিটে কবির সমাধিস্থলে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হবে। সন্ধ্যা ৭টায় একাডেমির জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে শুরু হবে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকীর সভাপতিত্বে আলোচনা করবেন আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. হাকিম আরিফ।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে একক সংগীত, সমবেত সংগীত, সমবেত নৃত্য ও আবৃত্তিতে মুখরিত হবে পুরো আয়োজন। শারমীন সাথী ইসলামের পরিবেশনায় ‌‘আমার কালো মেয়ের পায়ের তলায়’, ছন্দা চক্রবর্তীর ‘সন্ধ্যা গোধূলি লগনে’, ঊর্বী সোমার ‘সখি বাদল বাদল ঝুলনিয়া’, মোঃ ইয়াকুব আলী খানের ‘বধূ তোমার আমার এই যে বিরহ’, শেখ জসীমের ‘আমি গানে গানে ঢাকবো আমার গভীর অভিমান’, মো. মফিজুর রহমানের ‘খোল গো আঁখি’, বিজন চন্দ্র মিস্ত্রীর ‘সাদা মন চাহে’ এবং শোভন মজুমদারের ‘সৃজন ছন্দে আনন্দে’ শিরোনামে একক সংগীত পরিবেশনা।

তথ্যগুলো নিশ্চিত করেন শিল্পকলা একাডেমির জনসংযোগ কর্মকর্তা হাসান মাহমুদ।

আরও জানান, বিশেষ এই আয়োজনে একক সংগীত পরিবেশন করবেন ইয়াসমিন মুশতারী, ড. নাশিদ কামাল প্রমুখ। এছাড়াও সরকারি সংগীত মহাবিদ্যালয়-এর ‘দুর্গম গিরি কান্তার মরু’, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগের ‘জাগো অমৃত পিয়াস’, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগের ‘মোরা ঝঞ্ঝার মতো উদ্দাম’, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি শিশু সংগীত দলের ‘মনের রং লেগেছে’ এবং বাংলাদেশ নজরুলসংগীত শিল্পী সংস্থার ‘এ কি অপরূপ রূপে মা’ শিরোনামে সমবেত সংগীত পরিবেশনা থাকবে।

সমবেত নৃত্যায়োজনে এম আর ওয়াসেক পরিচালিত ‘আজ সৃষ্টি সুখের উল্লাসে’, ফারহানা চৌধুরী বেবীর ‘বাগিচায় বুলবুলি তুই’, অনিক বোসের ‘রুমঝুম রুমঝুম কে বাজায়’, সোহেল রহমানের ‘বেল ফুল এনে দাও চাইনা বকুল’, সালমা বেগম মুন্নির ‘দেশের পুরো নারী’, মুনমুন আহমেদ পরিচালিত ‘ঘন মায়াময় স্বপনে’ প্রভৃতি।

জয়ন্ত চট্টোপাধ্যায়ের কণ্ঠে আবৃত্তি ‘আমার কৈফিয়ত’, শিমুল মুস্তাফার ‘নূরালদীনের সারাজীবন’, ঝর্ণা সরকারের ‘নারী’ এবং প্রজ্ঞা লাবনীর আবৃত্তি পরিবেশনাও থাকছে।

বর্ণাঢ্য এই অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করবেন দিলরুবা সাথী ও আহসান উল্লাহ তমাল।