ঈদের পর হতে পারে এসএসসি পরীক্ষা, পেছাবে এইচএসসিও

বন্যার কারণে স্থগিত এসএসসি-সমমান পরীক্ষা শুরু করতে আরও এক মাস সময় লাগতে পারে। এখন পর্যন্ত ঈদুল আজহার পর জুলাইয়ের শেষ সপ্তাহে শুরুর চিন্তা চলছে।চলতি মাসজুড়ে বন্যা স্থায়ী হওয়ার শঙ্কা আছে। পাশাপাশি বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অর্ধবার্ষিক পরীক্ষা বা ঈদের ছুটি শুরু হয়ে গেছে। এ কারণে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে। এবার এসএসসি ও সমমান পরীক্ষায় ২০ লাখ ২১ হাজার ৮৬৮ জন পরীক্ষার্থী আছে।

এই পরীক্ষার কারণে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষাও পেছাচ্ছে। দুই পরীক্ষার মধ্যে কমপক্ষে দুই মাসের দূরত্ব প্রয়োজন শিক্ষা বোর্ডগুলোর। পরীক্ষা গ্রহণের পাশাপাশি ফল তৈরির জন্য এ সময়টা তাদের প্রয়োজন হয়। সেই হিসাবে এই পরীক্ষা সেপ্টেম্বরের শেষ সপ্তাহে নেওয়ার চিন্তা চলছে।

এসব বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব আবু বকর ছিদ্দীক বলেন, এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা কবে নেওয়া হবে-সেই সিদ্ধান্ত জানানোর সময় এখনো আসেনি। কেননা, এখনও দেশের বিভিন্ন জেলায় বন্যা চলছে। কবে নাগাদ পানি নেমে যাবে সেটাও বলা যাচ্ছে না।

তাছাড়া পানি নেমে গেলে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সংস্কার, মেরামত ও নির্মাণের প্রয়োজন দেখা দিতে পারে। এরমধ্যে ঈদুল আজহার ছুটি আছে। সবমিলে ঈদের পরেই এই পরীক্ষা নেওয়ার চিন্তা আছে। আর এসএসসি পেছালে এইচএসসিও পেছাবে। কেননা, উভয় পরীক্ষার মধ্যে দুই মাসের পার্থক্য প্রয়োজন হয়।

সূত্র জানিয়েছে, বুধবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত এক সভায় যোগ দেন ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান ও আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক তপন কুমার সরকার। এ সময় তার সঙ্গে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব পরীক্ষার বিষয়ে কথা বলেন। এরপরই পরীক্ষার সম্ভাব্য সময় ঠিক হয়।