নৌকা ছাড়া এ দেশের মানুষের কোনো গতি নেই: প্রধানমন্ত্রী

আওয়ামী লীগের নির্বাচনি প্রতীক নৌকা মার্কা ছাড়া এই দেশের মানুষদের কোনো গতি নেই বলে মনে করেন দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বলেছেন, ‘আওয়ামী লীগ কেবল স্বাধীনতা এনে দেয়নি, স্বাধীনতার সুফল এখন ঘরে ঘরে পৌঁছে দিচ্ছে।’

বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগের ৭৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক আলোচনায় তিনি এসব কথা বলেন। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যুক্ত হন শেখ হাসিনা।

শেখ হাসিনা তার বক্তব্যে সাম্প্রতিক নানা ঘটনাপ্রবাহের পাশাপাশি ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে একাদশ জাতীয় নির্বাচন নিয়েও কথা বলেন।

সেই নির্বাচনে বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের ভরাডুবির পর জোট নেতারা অভিযোগ করেন, আগের রাতেই সিল মেরে বাক্স ভরা হয়েছে আর দিনভর তাদের ভোটারকেরকে কেন্দ্রে যেতে দেয়া হয়নি।

তবে শেখ হাসিনা অভিযোগ করেন, সেই নির্বাচনে বিএনপি মনোনয়ন বাণিজ্য করেছিল। বলেন, ‘নেতৃত্বশূন্য একটা দল ইলেকশন করবে, জনগণ ভোট দেবে কী দেখে? ওই চোর, ঠকবাজ, এতিমের অর্থ আত্মসাৎ করা, খুন, অস্ত্র চোরাকারবারী, সাজাপ্রাপ্ত আসামি- তাদেরকে এ দেশের জনগণ ভোট দেবে এ দেশ চালানোর জন্য? তা তো এদেশের জনগণ দেবে না। বাংলাদেশের মানুষ এ ব্যাপারে যথেষ্ট সচেতন। তারা জানে আওয়ামী লীগের নৌকা মার্কা। এবার বন্যায়ও তো নৌকার জন্য হাহাকার। নৌকা ছাড়া তো গতি নাই বাংলাদেশে- এটাও মনে রাখতে হবে।’

বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, ‘আওয়ামী লীগ এখানে নিজের ভাগ্য গড়তে আসেনি। আওয়ামী লীগ এদেশের মানুষের ভাগ্য গড়তে এসেছে। আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে যদি দেখা যায় আজ পর্যন্ত এদেশের মানুষের যতটুকু অর্জন সবটুকুই আওয়ামী লীগের হাতে। আওয়ামী লীগ যখনই সরকারে এসেছে এদেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন ঘটেছে। এ জন্য আওয়ামী লীগকে বার বার ক্ষমতায় আসতে দেয়া হয় না। কারণ, তাহলে বাংলাদেশের মানুষকে শোষণ করতে পারে না, নির্যাতন করতে পারে না।’

এদেশের প্রকৃতি, মানুষের উন্নয়ন আওয়ামী লীগ যতটা বুঝবে অন্যরা তা বুঝবে না বলেও মন্তব্য করেন শেখ হাসিনা। বলেন, ‘বুঝবে কী করে? বিএনপির হৃদয়ে তো থাকে পাকিস্তান। তাদের মনেই আছে পাকিস্তান। দিল ম্যা হ্যায় প্যায়ারে পাকিস্তান। সারাক্ষণ গুণ গুণ করে ওই গানই গায়।’

নেতা-কর্মীদেরকে বিএনপি নিয়ে না ভাবার পরামর্শও দেন বঙ্গবন্ধু কন্যা। বলেন, ‘তারা বাংলাদেশের ভালো চাইবে না এটা খুব স্বাভাবিক। এটা নিয়ে আপনাদের এত দুঃখ করার, চিন্তা করার কিচ্ছু নাই। আর ওদের কথা যত না বলা যায় ততই ভালো। কারণ, ওরা বাংলাদেশের স্বাধীনতাই বিশ্বাস করে না।

‘বরং এই সবগুলিকে গাট্টি বাইন্ধা পাকিস্তানে পাঠাইয়া দিলে ভালো হয়। পাকিস্তানের এখন যে অবস্থা ওখানে থাকলেই তারা ভালো থাকবে। এখনও লাহোরে সোনার দোকানে খালেদা জিয়ার বড় ছবি আছে যে ওই দোকানের সোনার গহনা তার খুব প্রিয়।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘এদের জন্মও তো বাংলাদেশে না। না জিয়ার জন্ম বাংলাদেশে, না খালেদা জিয়ার জন্ম বাংলাদেশে- কারো জন্মই না। এরশাদও তো কোচবিহারী। একমাত্র আমার বাবা ছিলেন এই দেশের, আমারও এই দেশের মাটিতে জন্ম। কাজেই মাটির টান আলাদা। এখানে আমাদের নাড়ির টান। কাজেই এই দেশের মানুষের ভাগ্য গড়াটাই তো আমাদের লক্ষ্য। সেই জন্যই আমরা কাজ করি। আওয়ামী লীগের আদর্শই হচ্ছে জনগণের সেবা করা। ’

১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় এসে পাঁচ বছরে যতটুকু অর্জন করতে পেরেছিল, ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় এসে সবই নস্যাৎ করেছিল বলেও অভিযোগ করেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘তারা বাংলাদেশকে জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস এবং দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন করেছিল। খালেদা জিয়া প্রাইম মিনিস্টার থাকতে পাঁচ পাঁচ বার দুর্নীতিতে এক নম্বর চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ। সেই ভাবমূর্তি বাংলাদেশের জন্য কতটা অসম্মানজনক।

‘সেখান থেকে আমরা দেশকে পরিবর্তন করে এখন বিশ্বে একটা সম্মানজনক স্থানে নিয়ে গেছি। বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল এবং উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা আমরা পেয়েছি।’

বিএনপি মিথ্যার কারখানা

বিএনপির বিরুদ্ধে মিথ্যাচারের অভিযোগও আনেন শেখ হাসিনা। বলেন, ‘মিথ্যা কথা বানানো আর মিথ্যা কথা বলার যদি কারখানা থেকে থাকে, সেটা হলো বিএনপি। তারা মিথ্যা কথা বানানো, বলতে খুব ভালো পারে। …আমাদের কিছু লোক সেটা বিশ্বাস নিয়ে বসে থাকে।’

সরকারপ্রধান উল্লেখ করেন, ‘আমরা পদ্মা সেতু করেছি আমাদের নিজস্ব অর্থায়নে। এটা নিয়েও প্রশ্ন তোলে। বিএনপি আবার প্রশ্ন তোলে কোন মুখে, যাদের আপাদমস্তক দুর্নীতিতে ভরা? এতিমের অর্থ আত্মসাৎ করে সাজা পেয়েছেন খালেদা জিয়া। শুধু এতিমের অর্থ কেন নাইকো, গেটকো- এ রকম বহু কেস ঝুলে আছে। ওই কেসে সে তো কখনও কোর্টেই যেতে চায়নি। প্রত্যেকটা প্রজেক্টে দুর্নীতি করে তারা টাকা বানিয়েছে। তারেক জিয়া, খালেদা জিয়া, কোকো সবই তো।’

‘পদ্মায় দুর্নীতির অভিযোগ তো কানাডার আদালতই নাকচ করেছে’

পদ্মা সেতুতে পরামর্শক নিয়োগে দুর্নীতির চেষ্টার যে অভিযোগ বিশ্বব্যাংক করেছিল, কানাডার একটি আদালতের রায়ে ২০১৭ সালে নাকচ হওয়ার প্রসঙ্গও তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

বিশ্বব্যাংক একটি উড়ো চিঠির ভিত্তিতে অভিযোগ করেছিল, কানাডীয় প্রতিষ্ঠান এসএনসি লাভালিন এই প্রকল্পে কাজ পেতে ঘুষ দেয়ার পরিকল্পনা করছিল। তবে ২০১৭ সালে কানাডার আদালতে লাভালিনের বিরুদ্ধে করা মামলাটি বাতিল হয়ে যায়। বিচারক বিশ্বব্যাংকের অভিযোগকে গালগপ্প বলে উড়িয়ে দিয়ে বিরক্তি প্রকাশ করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কানাডার কোর্টে মামলা দিয়েছিল। স্পষ্টভাবে রায়ে বলা হয়েছে, ওয়ার্ল্ড ব্যাংক যে যে অভিযোগ এনেছে সবই মিথ্যা, ভুয়া, কোনোটাই সঠিক না।

‘একটা অপবাদ দিতে চেয়েছিল। সেটা তো আজকে প্রমাণিত যে এখানে কোনো দুর্নীতি হয় নাই। তারপরে এই সেতুটা যে আমরা করেছি এটা তো একটা মাল্টিপারপাস সেতু আমরা করেছি। সেটা নিয়েও তারা প্রশ্ন তোলে কোন মুখে? ওরা (বিএনপি) তো কিছুই করে যেতে পারেনি।’

যমুনা সেতু নির্মাণের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়া ক্ষমতায় এসে খুব বেশি এগোতে পারেননি। কারণ, সব জায়গায় তো কমিশন খাওয়ার অভ্যাস। আবার কমিশন তো একজনকে দিলে হবে না। মায়ের জন্য একটা, দুই ছেলের জন্য দুইটা, ফালুর জন্য একটা, অমুকের জন্য একটা- এই করতে করতে কেউ আর ওখানে কাজ করতে পারত না। এত ভাগে ভাগে তাদের কমিশন দিতে হতো। সেই কারণেই কোনো কিছু এগোতে পারেনি।

‘আমরা ৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে এই যমুনা সেতুতে রেল লাইন, গ্যাস লাইন, বিদ্যুতের লাইন নিয়ে এটার ডিজাইনটা পাল্টে মাল্টিপারপাস ব্রিজ করে আমরাই তৈরি করি।’

তারেকের নাগরিকত্ব নিয়ে প্রশ্ন

বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার ছেলে ও দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নাগরিকত্বের পরিচয় নিয়ে আবার প্রশ্ন করেন আওয়ামী লীগ প্রধান।

২০০৭ সালে সেনা সমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে গ্রেপ্তারের পরের বছর প্যারোলে মুক্তি নিয়ে চিকিৎকার জন্য যুক্তরাজ্যে গিয়ে আর ফেরেননি তারেক রহমান। এর মধ্যে বিদেশে অর্থপাচার, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি, ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা এবং বঙ্গবন্ধুকে কটূক্তির মামলায় তার সাজা হয়েছে। এর মধ্যে সর্বোচ্চ সাজা হয়েছে গ্রেনেড হামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড।

তারেক রহমান যুক্তরাজ্যের নাগরিকত্ব নিয়েছেন বলে আগের দিন করা সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। প্রসঙ্গটি আওয়ামী লীগের আলোচনাতেও তোলেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘দুর্নীতি করে যদি টাকা না বানাবে বিদেশে এত বিলাসবহুল জীবন-যাপন করে কী করে? কত টাকা খরচ করে সেখানে কোম্পানি খুলেছে এবং সেই কোম্পানিতে প্রথমেই সে যে ব্রিটিশ নাগরিক সেটা লিখেছে। পরে এক বছর পরে সেটাকে আবার সংশোধন করে সেখানে বাংলাদেশের নাগরিক লিখেছে।

‘কারণ, মিথ্যা কথা লেখাতে ধরা পড়ে যায়। কাজেই সেটাকে আবার সংশোধনও করেছে। যখন টাকার কথা তুলেছি যে সে ব্রিটিশ নাগরিকত্ব পেল কোথা থেকে? একটা সাজাপ্রাপ্ত আসামিকে ব্রিটিশরা কীভাবে নাগরিকত্ব দেয়? সেটা এখন তারা উইথড্র করেছে। এখন বাংলাদেশের লিখেছে।’

সব জেনে শুনেই প্রসঙ্গটি তুলেছেন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তথ্য তো আমাদের কাছে আছে। এদেরই বেশি বড় গলা। কথাই তো বলে, চোরের মায়ের বড় গলা।’

আমাকে হত্যার চেষ্টা করেন খালেদা-তারেক

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার কথা তুলে ধরে বেগম খালেদা জিয়া ও তারেক রহমানকে সরাসরি দায়ী করেন শেখ হাসিনা। বলেন, ‘২১ আগস্ট গ্রেনেড ছুড়ে খালেদা জিয়া ও তারেক জিয়া আমাকে হত্যা করতে চেষ্টা করেছে। কোটালীপাড়ার বিশাল বোমার পেছনে কি তারা ছিল না? সেখানেও তাদের হাত ছিল।

‘বারবার আমার উপর যে আঘাত করেছে, গুলি বোমা, ট্রেনের মধ্যে গুলি এবং ট্রেনের মধ্যে পাথর মারা, কারা করেছে? এরাই করেছে। এরাই যে ১৫ আগস্টের হত্যা এবং চক্রান্তের সঙ্গে জড়িত। জিয়াউর রহমান, খালেদা জিয়া, তারেক জিয়া ৭৫ এর হাতিয়ারকে সমর্থন দেয়, অর্থাৎ খুনিদের সমর্থন দেয়।’

‘বন্যায় সহায়তা না দিয়ে তারা মায়াকান্নায় ব্যস্ত’

সিলেট অঞ্চল ও উত্তরের বন্যায় বিএনপি দুর্গতদের পাশে দাঁড়ায়নি বলেও অভিযোগ করেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, তারা সেখানে না দিয়ে ঢাকায় বসে নানা কথা বলছে।

আওয়ামী লীগ প্রধান বলেন, ‘আজকে বন্যা হয়েছে, আজ পর্যন্ত কোনো বিএনপির নেতা বা কেউ কোনো সাহায্য দিয়েছে বন্যাবাসীদের? দেয়নি। ঢাকায় বসে বসে নানা কথা বলে বেড়াচ্ছে। কিন্তু আমাদের আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা এমন এমন দুর্গম এলাকা যেখানে বন্যার পানির জন্য কেউ পৌঁছাতে পারছে না।

‘আওয়ামী লীগ ছাড়াও, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগও ত্রাণ বিতরণ করে যাচ্ছে। তারা মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছে, খাদ্য সাহা্য্য দিচ্ছে, উদ্ধার কাজ করছে। তারা (বিএনপি) বন্যাবাসীদের জন্য আজ পর্যন্ত এক মুঠো খাবারও দিতে পারেনি বা তাদের পাশে না দাঁড়িয়ে এখানে বসেবসে মায়াকান্না কেঁদে যাচ্ছে। এটাই হচ্ছে এদের চরিত্র।’

ত্রাণ নিয়ে এতটুকু গাফিলতি নেই

বানভাসী মানুষের পাশে সশস্ত্র বাহিনী, বিজিবি, কোস্টগার্ড, পুলিশ, প্রশাসন সবাইকেই নিয়োগ করা হয়েছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘তারা সবাই সেখানে কাজ করে যাচ্ছে। প্রতিনিয়ত উদ্ধার করা, চিকিৎসার ব্যবস্থা করা, খাদ্য দেয়ায় সেখানে এতটুকু গাফলতি নেই।

‘ডে ওয়ান থেকে আমরা এই বানবাসী মানুষের পাশে আছি। বন্যা-এটা প্রাকৃতিক কারণেই বাংলাদেশে আসবে, হবেই। এর সঙ্গে আমাদের বসবাস করতে হবে।’

আগামী সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বন্যা চলতেই থাকবে বলেও সতর্ক করেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘এই পানি আস্তে আস্তে নীচে যত নামতে থাকবে ধীরে ধীরে একেকটা এলাকা প্লাবিত হতে থাকবে। আমাদের সেই প্রস্তুতিও রাখতে হবে। এটা কিন্তু একেবারে ভাদ্র মাস পর্যন্ত চলবে। অর্থাৎ সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত চলতে পারে এই বন্যা। সেটা মাথায় রেখেই আমাদের কিন্তু প্রস্তুতি নিতে হবে।

করোনা আবার বাড়ছে বলে সবাইকে স্বাস্থ্য বিধি‌ মেনে চলার আহ্বানও জানান শেখ হাসিনা।