নারী ফুটবলারদের গৌরবোজ্জ্বল অর্জন ম্লান করেছে চুরির ঘটনা

নারী ফুটবলারদের গৌরবোজ্জ্বল অর্জন ম্লান করেছে চুরির ঘটনা

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান
‘নারী ফুটবল দলের সদস্যদের লাগেজ কেটে চুরির যে অভিযোগ উঠেছে, তা অত্যন্ত দুঃখজনক ঘটনা। নারী ফুটবল দলের এই অর্জন গোটা জাতির অর্জন। সবাই আনন্দিত। লাগেজ কেটে চুরির ঘটনা সেই আনন্দ ম্লান করে দিয়েছে।’

বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) একথা বলেন দুর্নীতিবিরোধী আন্তর্জাতিক সংস্থা ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান।

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সাফ নারী ফুটবল চ্যাম্পিয়নশিপ বিজয়ী বাংলাদেশ দলের দুই খেলোয়াড়ের লাগেজ থেকে অর্থ চুরির অভিযোগ উঠেছে। যদিও বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ এমন অভিযোগের সত্যতা পায়নি বলে বিবৃতি দিয়েছে।

ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, ‘সত্যি সত্যিই যদি লাগেজ কেটে চুরির ঘটনা ঘটে থাকে, তাতে অবাক হবো না। বাংলাদেশের বিমানবন্দরগুলো, বিশেষ করে ঢাকা বিমানবন্দরে এরকম লাগেজ চুরি, লাগেজ কেটে চুরি, অনিয়ম-দুর্নীতি নিয়মিতভাবে হয়ে আসছে। এর আগেও বহুবার এমন ঘটনা ঘটছে। ঘটনা সত্য হলে বিমানবন্দরের অব্যবস্থাপনার বিষয়টি আবারও প্রমাণিত হয়। চুরির ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে কর্তৃপক্ষ যথাযথ পদক্ষেপ নিতে পেরেছে বলে মনে হয় না। কারণ এই ঘটনাগুলো পরম্পরায় ঘটে আসছে।’

‘নারী ফুটবলারদের লাগেজ কেটে চুরির ঘটনা অবশ্যই খতিয়ে দেখা দরকার। কারা এর সঙ্গে জড়িত, কোথায় ঘটলো, কীভাবে ঘটলো তা তদন্তসাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি রাখে। একটি ঘটনার ব্যবস্থা নিতে পারলে শত ঘটনা ঠেকানো যায়। যদি দোষীদের খুঁজে বের করে এনে জবাবদিহি নিশ্চিত করা যেত, তাহলে এমন চুরির ঘটনা আরও কমিয়ে আনা সম্ভব হতো। যদিও এমন ঘটনা সম্প্রতি কিছুটা কমেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।’

বিমানবন্দরে চলাচলকারী যাত্রীদের সচেতন হওয়ার পরামর্শস্বরূপ তিনি বলেন, ‘পাশাপাশি আমি এ-ও বলবো, যারা বিমানবন্দরে লাগেজ বহন করেন, তাদের আরও সতর্ক থাকা দরকার। লাগেজ বা এমন ব্যাগে অর্থ রাখা কোনোভাবেই যুক্তিসঙ্গত না। নারী ফুটবলাররা হয়তো সরল বিশ্বাসে রেখেছেন। তাদের লাগেজে কেউ হাত দেবে না, এমনটি হয়তো ধারণা করেছিল। এটি তাদের বিশ্বাস ছিল হয়তো। কিন্তু আমি বলবো, এক্ষেত্রে তাদের আরও সচেতন হতে হবে। এমন ঝুঁকি নেওয়া ঠিক হয়নি। তারা একটি দেশের প্রতিনিধিত্ব করছেন। তাদের সতর্কতা সবার জন্যই মেসেজ দেয়।’

‘নারী ফুটবলারদের গৌরবোজ্জ্বল অর্জনকে ম্লান করেছে চুরির ঘটনা। তাদের হয়তো অর্থ চুরি গেছে। কিন্তু এ ঘটনায় সারাদেশের মানুষের মধ্যে উদ্বেগ বাড়িয়েছে। যদি চুরির ঘটনা সত্যি হয়, তাহলে কর্তৃপক্ষ বিমানবন্দরে মানুষের নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থ হয়েছে।’

বিমানবন্দরে দুর্নীতির ঘটনায় সিন্ডিকেট কাজ করে। যারা এখানে দায়িত্ব পালন করেন, তাদেরই একটি অংশ এই সিন্ডিকেটে জড়িত। চাইলে এই সিন্ডিকেটকে জবাবদিহির আওতায় আনা সম্ভব যোগ করেন ড. ইফতেখারুজ্জামান।